মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

ভাস্কর্য

ব্যানারটিতে তিনটি ছবি দেয়া আছে।

১. রয়্যাল মোড়ে খুলনার হোয়াইট গোল্ড নামে পরিচিত চিংড়ি: বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিম অঞ্চলে অবস্থিত খুলনা জেলা মৎস্য সম্পদে অত্যন্ত সমৃদ্ধ ও সম্ভাবনাময় একটি জনপদ। এ জেলায় ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় ৬৯,৯৬৯টি চিংড়ি ঘের রয়েছে। যার আয়তন ৫৬,১৮৬ হেক্টর যা দেশের মোট চিংড়ি চাষ এলাকার প্রায় ২১শতাংশ। বিগত ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে এ জেলায় চিংড়ির মোট উৎপাদন ছিল ২৫০০০ মে.টন এবং এক্ষেত্রে রপ্তানীযোগ্য গলদা ও বাগদা চিংড়ির বিশেষ অবদান রয়েছে। দেশের মোট ৮৭টি মৎস্য প্রক্রিয়াকরণ কারখানার মধ্যে ৩৯টিই গড়ে উঠেছে খুলনা অঞ্চলে। চিংড়ি সেক্টরকে কেন্দ্র করে চিংড়ি পিএল উৎপাদনকারী হ্যাচারি, মৎস্য খাদ্য উৎপাদনকারী কারখানা, বরফ কারখানা, মৎস্য খাদ্য বিক্রয়, পরিবহন, উপকরণ সরবরাহ, আমদানী রপ্তানী ইত্যাদি প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে যার মাধ্যমে ব্যাপক সংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে।

বর্তমানে দেশে চাষযোগ্য চিংড়ি উৎপাদন ১,৩৩,০০০ মে.টন। তন্মধ্যে খুলনা জেলার উৎপাদন ২৫,০০০ মে.টন যা দেশের মোট উৎপাদনের প্রায় ১৯%। চিংড়ির উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য নানামুখী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে খুলনা জেলায় প্রায় ৫০০ হেক্টর জমিতে সেমি ইনটেনসিভ পদ্ধতিতে বাগদা চিংড়ি চাষ শুরু হয়েছে। এ পদ্ধতিতে হেক্টর প্রতি উৎপাদন ৪-৮ মে.টন।

খুলনা জেলার ডুমুরিয়া উপজেলার বড়ডাঙ্গা গ্রামের ২২৭জন চিংড়ি চাষী একত্রিত ও সংঘবদ্ধ হয়ে চাষের ক্ষেত্রে গুড এ্যাকুয়াকালচার প্রাকটিস অনুসরণ করে নিরাপদ ও স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে চিংড়ি উৎপাদনের অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। কোন ধরনের কীটনাশক ও রাসায়নিক পদার্থ ব্যবহার না করে সম্পূর্ণ জৈব পদ্ধতি অনুসরণ করে উৎপাদন দ্বিগুণ বাড়াতে সক্ষম হয়েছে। তাদের অনুসৃত প্রযুক্তিটি সারাদেশে ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছে যা চিংড়ি চাষের বড়ডাঙ্গা মডেল নামে সকলের নিকট ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হচ্ছে।

চিংড়ি সেক্টরের মান উন্নয়নের লক্ষ্যে ন্যাশনাল রেসিডিউ কন্ট্রোল প্লান এর আওতায় নিরাপদ চিংড়ি উৎপাদন ও বিপণনের বিভিন্ন পর্যায় থেকে নমুনা সংগ্রহের মাধ্যমে তাতে ক্ষতিকর জীবাণু বা রাসায়নিক আছে কি-না নিয়মিত পরীক্ষা করা হয় এবং প্রযোজ্য ক্ষেত্রে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। উক্ত কার্যক্রমের ফলে স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশি চিংড়ির সুনাম বৃদ্ধি পেয়েছে এবং এর অংশ হিসেবে ইউরোপিয় ইউনিয়ন বাংলাদেশের চিংড়ির জন্য বাধ্যতামূলক টেস্ট থেকে অব্যাহতি প্রদান করেছে।

২. খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মারক ভাস্কর্য

৩. শিববাড়ি মোড়ে মনুমেন্ট