মেনু নির্বাচন করুন

দৌলতপুর মুহসীন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়

  • সংক্ষিপ্ত বর্ণনা
  • প্রতিষ্ঠাকাল
  • ইতিহাস
  • প্রধান শিক্ষক/ অধ্যক্ষ
  • অন্যান্য শিক্ষকদের তালিকা
  • ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা (শ্রেণীভিত্তিক)
  • পাশের হার
  • বর্তমান পরিচালনা কমিটির তথ্য
  • বিগত ৫ বছরের সমাপনী/পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল
  • শিক্ষাবৃত্ত তথ্যসমুহ
  • অর্জন
  • ভবিষৎ পরিকল্পনা
  • ফটোগ্যালারী
  • যোগাযোগ
  • মেধাবী ছাত্রবৃন্দ

দৌলতপুর মুহসীন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় খুলনা জেলার দৌলতপুর থানার ৩ নং ওয়ার্ডে অবস্থিত। বাংলাদেশ যশোর শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক প্রদত্ত বিদ্যালয় কোড নং- ৩৫৭৬ এবং ই,আই,আই,এন নং- ১১৬৯৩৮, বেইনবেইজ/এম.পি.ও কোড নং-৬০০৩০২১৩০৫। অত্রবিদ্যালয়টি ১৯৫২ সালে ১ একর ১৮ শতক জমির উপর প্রতিষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয়টি ০১/০৭/১৯৬১ ইং সালে যশোর শিক্ষা বোর্ডের অনুমোদন লাভ করে দক্ষিণ বাংলার নারী শিক্ষার উন্নয়ন ও সম্প্রসারনের প্রতিষ্ঠা কাল থেকে অদ্যাবধি অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে। বর্তমানে বিদ্যালয়ের ভবন সংখ্যা ৪টি, শ্রেণী কক্ষ-১৭টি, বিজ্ঞানাগার-১টি, নামায কক্ষ-১টি, লাইব্রেরী কক্ষ-১টি, প্রধান শিক্ষকের কক্ষ-১টি, অফিস কক্ষ-১টি, শিক্ষকের কক্ষ-১টি, শিক্ষিকাদের কক্ষ-১টি, কম্পিউটার ল্যাব কক্ষ-১টি। বর্তমানে এই ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয়ে ৭৫৫ জন শিক্ষার্থী অধ্যায়নরত। বিদ্যালয়টি ৬ষ্ঠ  শ্রেনী থেকে ১০ম শ্রেনী পর্যন্ত পাঠ দানের কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। ৬ষ্ঠ শ্রেণী থেকে ১০ শ্রেণী পর্যন্ত তিনটি করে শাখা  (ক,খ,গ) চালু রয়েছে। সমগ্র শিক্ষা কার্যক্রম সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিক্ষক মন্ডলী দ্বারা পরিচালিত হয়ে আসছে। বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্যদ শিক্ষার মান বৃদ্ধির জন্য যথারীতি পর্যবেক্ষণ করে থাকেন। বর্তমানে বিদ্যালয়ের এম.পি.ও ভূক্ত শিক্ষক সংখ্যা-১৪, কর্মচারীর সংখ্যা-৬, মোট-২০ জন ও খন্ডকালীন শিক্ষক সংখ্যা-৭, কর্মচারীর সংখ্যা-১। ৮ম শ্রেনীর সমাপনী পরীক্ষা ও মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট  পরীক্ষায় উত্তরোত্তর সন্তোষজনক সাফ্যল্যের ধারা বজায় রেখে চলেছে। প্রতিষ্ঠানিক শিক্ষার পাশাপাশি সহ শিক্ষা কার্যক্রম যথা খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ে অংশগ্রহনে মাধ্যমে গৌরবময় কৃতিত্বের স্বাক্ষর বহন করে। অত্র বিদ্যালয়ের কৃতি ছাত্রীরা দেশ ও বিদেশে অত্যান্ত সুনামের সাথে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে কর্মরত আছে।

০১/০১/১৯৫২ ইং সালে স্থাপিত

দৌলতপুর মুহসীন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় খুলনা জেলার দৌলতপুর থানার ৩ নং ওয়ার্ডের স্থানীয় শিক্ষানুরাগী ও সমাজ সেবকদের ঐকান্তিক চেষ্টায় এই অঞ্চলে নারী শিক্ষা প্রসারে দৌলতপুর মডেল গার্লস স্কুল নামে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করে। পরবর্তীতে ১৯৫২ সালে আমাদের জাতীয় জীবনের সেই গৌরবময় ভাষা আন্দোলনের স্মরণীয় বছরে জানুয়ারী মাসে দানবীর হাজী মুহাম্মদ মুহসীন এর দানকৃত ১.১৮ শতক জমির উপর বিদ্যালয়ের শিক্ষক মোস্তাক উল্লাহ, মীর্জা ইব্রাহীম হোসেন (ডেপুটি মেজিষ্ট্রেট), শেখ নিসার উদ্দিন, ডাঃ আব্দুল গফুর, সৈয়দ জহর আলী, আবুল কাশেম, ভ্রমর লাল মুন্দ্রা (মাড়োয়ারী), গোলাম আকবর মোল্লা, শেখ আশরাফ হোসেন,  মিনা শামসুর রহমান ও আরো অনেক সুধীজনের প্রচেষ্টায় ও অবদানে দৌলতপুর মুহসীন মাধ্যামিক বালিকা বিদ্যালয় নামে প্রতিষ্ঠত হয়। বিদ্যালয়ের সুবিধার জন্য জনাব ইব্রাহীম হোসেনের পুকুরের উত্তর পাড়ের কিছু জমি এওয়াজমালি (বিনিময়) হিসাবে গ্রহন করা হয়। এলাকার বিশিষ্ট পাট ব্যবসায়ী ফজল সাহেব এবং সগীর উদ্দিন সাহেবের কিছু পরিমান জমি তখনকার বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ক্রয় করেন। অত্র বিদ্যালয়ের সম্পত্তি হতে কিছু জমি পরবর্তীতে মুহসীন প্রাথমিক সরকারি বালিকা বিদ্যালয় এবং মুহসীন মহিলা কলেজকে দান করা হয়। এছাড়া বিশিষ্ট শিল্পপতি আফিল উদ্দিন সাহেবের স্ত্রী নূরজাহান বেগম এর নিকট থেকে তার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ কিছু জমি দান হিসাবে গ্রহন করা হয়। এই সমস্ত জমি নিয়েই বিদ্যালয়ের অবস্থান।

বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা লগণ থেকেই নারী শিক্ষা সম্প্রসারনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে। বিদ্যালয়ের কৃতি ছাত্রীরা দেশ বিদেশে অত্যন্ত সুনামের সাথে গুরুত্বপূর্ণ পদে কর্মরত আছেন। তন্মধ্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এম,পি,    খুলনা -০৩।

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
রণজিৎ কুমার বিশ্বাস 0 ranjit_biswas@yahoo.com

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল

মোট ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা

৭৫৫ জন

ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা (শ্রেনী ভিত্তিক)

৬ষ্ঠ শ্রেণীর ‘‘ক’’ বিভাগের ছাত্রী                                   = ৫৩ জন

৬ষ্ঠ শ্রেণীর ‘‘খ’’ বিভাগের ছাত্রী                                   = ৫২ জন

৬ষ্ঠ শ্রেণীর ‘‘গ’’ বিভাগের ছাত্রী                                   = ৪৫ জন

                                                            মোট    = ১৫০ জন 

৭ম শ্রেণীর ‘‘ক’’ বিভাগের ছাত্রী                                   = ৬০জন

৭ম শ্রেণীর ‘‘খ’’ বিভাগের ছাত্রী                                   = ৬০ জন

৭ম শ্রেণীর ‘‘গ’’ বিভাগের ছাত্রী                                    = ৪০ জন

                                                            মোট    = ১৬০ জন 

৮ম শ্রেণীর ‘‘ক’’ বিভাগের ছাত্রী                                   = ৬০জন

৮ম শ্রেণীর ‘‘খ’’ বিভাগের ছাত্রী                                   = ৬০ জন

৮ম শ্রেণীর ‘‘গ’’ বিভাগের ছাত্রী                                   = ৫০ জন

                                                            মোট    = ১৭০ জন

 

৯ম শ্রেণীর ‘‘ক’’ বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রী              = ৪০জন

৯ম শ্রেণীর ‘‘খ’’ মানবিক বিভাগের ছাত্রী             = ৩০ জন

৯ম শ্রেণীর ‘‘গ’’ ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের ছাত্রী      = ৫০ জন

                                                            মোট    = ১৩৫ জন 

 

১০ম শ্রেণীর ‘‘ক’’ বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রী                        = ৩৬ জন

১০ম শ্রেণীর ‘‘খ’’ মানবিক বিভাগের ছাত্রী                       = ৩৪ জন

১০ম শ্রেণীর ‘‘গ’’ ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের ছাত্রী     = ৭০ জন

                                                            মোট    = ১৪০ জন 

 

৯০%

বর্তমানে বিদ্যালয় বিশেষ ম্যানেজিং কমিটির দ্বারা পরিচালিতঃ ু

 

(1)    জনাব মোঃ মাকসুদ হাসান পিকু          - (সভাপতি)

(2)   প্রধান শিক্ষক (পদাধিকার বলে)          - (সদস্য সচিব)

(3)   জনাব রুবানা মজিদ                        - (শিক্ষক প্রতিনিধি)

(4)    জনাব মোঃ জিল্লুর রহমান     - (শিক্ষক প্রতিনিধি)

(5)   জনাব আলী কাশেম                        - (অভিভাবক প্রতিনিধি)

(6)   জনাব অঞ্জন কুমার দাস                    - (অভিভাবক প্রতিনিধি)

(7)    জনাব আকুঞ্জী হাবিবুর রহমান            - (অভিভাবক প্রতিনিধি)

এস.এস.সি পরীক্ষাঃ

২০০৭ সালে ১৮৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৩২ জন কৃতকার্য

শতকরা হার ৭২.১৩%  

২০০৮ সালে ১৪৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১০৯ জন কৃতকার্য

শতকরা হার ৭৫.৭০% 

২০০৯ সালে ১৫৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১২৭ জন কৃতকার্য

শতকরা হার ৮৩.০৬%

২০১০ সালে ১৪০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১১৩ জন কৃতকার্য

শতকরা হার ৮০.৭১%

২০১১ সালে ১৭০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৫২ জন কৃতকার্য

শতকরা হার ৮৯.৪১%

জে.এস.সি পরীক্ষাঃ

২০১০ সালে ১৩৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৮০ জন কৃতকার্য

শতকরা হার ৫৭.৫৫%

২০১১ সালে ১৩৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১২৪ জন কৃতকার্য

শতকরা হার ৯১.১৮%

০৫ জন। 

শিক্ষার্থীদের পাসের হার ৭০% থেকে ৯০%- এ উন্নীত করন। জিপিএ-৫ ও গোল্ডেনের সংখ্যা বৃদ্ধিকরন, ছাত্রী ঝড়ে পড়া রোধকরন, ছাত্রীদের উপস্থিতি বৃদ্ধির জন্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা, স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায় খেলাধুলা, বিতর্ক প্রতিযোগিতা এবং সাংস্কৃতিতে সাফল্য অর্জন।

আধুনিক পদ্ধতিতে পাঠদান সহ মেধার ক্রমবিকাশ সাধনের জন্য সর্বদা সজাগ দৃষ্টি রাখব। শিক্ষার্থীদের পাসের হার ১০০%-এ  উন্নীত করণ, উত্তরোত্তর জিপিএ, গোল্ডেনের সংখ্যা বৃদ্ধি করন, প্রশাসনিক ভবন, অডিটোরিয়াম, বিজ্ঞানাগার ভবন, শ্রেণী কক্ষের জন্য নতুন ভবন, সীমানা প্রাচীর নির্মাণ, আধুনিক শৌচাগার নির্মাণ, মেইন গেট, ড্রেন নির্মাণ, পুরাতন ভবন মেরামত ও সংস্কারের পরিকল্পনা রয়েছে। ঐতিহ্যবাহী দৌলতপুর মুহসীন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা শিক্ষার প্রতি গুরুত্ব দিয়ে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সর্বাত্মক প্রচেষ্টায় অব্যাহত রাখব।

 দৌলতপুর মুহসীন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়,

ডাকঘর- দৌলতপুর, থানা- দৌলতপুর, জেলা- খুলনা।

মোবাইল নং- ফোনঃ ০৪১-৭৭৪৬৯৪

                 মোবাঃ ০১১৯৯-৩৪৫৩৭৮



Share with :

Facebook Twitter